ঢাকা, ফেব্রুয়ারী ২, ২০২৩, ১৯ মাঘ ১৪২৯, স্থানীয় সময়: ০৩:৪৩:৩৭

এ পাতার অন্যান্য সংবাদ

ভারতে শৈত্য প্রবাহ অব্যাহত থাকায় ‘অরেঞ্জ’ এলার্ট জারি মেয়র তাপসকে নিয়ে মিথ্যা তথ্য প্রচার : দায় স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দিয়েছে আসামি ফাহিম  পুতিনের ক্রিসমাসের যুদ্ধবিরতিকে ‘ভন্ডামি’ বলে উড়িয়ে দিয়েছে ইউক্রেন ইউক্রেনে সাঁজোয়া যান পাঠাবে যুক্তরাষ্ট্র ও জার্মানি : ওয়াশিংটন শাহরুখ খানকে জ্যান্ত পুড়িয়ে মারার হুমকি থাইল্যান্ডে যুদ্ধজাহাজ ডুবি: ৬ ক্রু সদস্যের মরদেহ উদ্ধার জেলেনস্কির যুক্তরাষ্ট্র সফরে যাওয়ার পরিকল্পনা দ.কোরিয়ার কাছে দেড়শ’ কোটি ডলারের হেলিকপ্টার বিক্রির অনুমোদন যুক্তরাষ্ট্রের দেশজুড়ে কোভিড নীতি শিথিল করার ঘোষণা চীনের ফের স্টেডিয়ামের আবর্জনা পরিষ্কার করলো জাপানি সমর্থকরা

শাহরুখ খানকে জ্যান্ত পুড়িয়ে মারার হুমকি

| ৭ পৌষ ১৪২৯ | Wednesday, December 21, 2022

 

বিরতির পর ‘পাঠান’ সিনেমা নিয়ে দর্শকের সামনে হাজির হয়েছেন শাহরুখ খান। কয়েকদিন আগে মুক্তি পেয়েছে ছবির গান। ‘বেশরম রঙ’ শিরোনামের সেই গানে গেরুয়া রঙের বিকিনিতে নেচেছেন দীপিকা পাড়ুকোন। তাতেই আপত্তি ভারতীয় হিন্দুদের। ‘পাঠান’ ছবি অশ্লীল। এই ছবি বয়কটের রব তোলেন মধ্যপ্রদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী নরোত্তম মিশ্র। মধ্যপ্রদেশের পর ‘পাঠান’ ছবি নিয়ে সবচেয়ে বেশি বিতর্ক হয়েছে অযোধ্যা শহরে। শাহরুখ-দীপিকা পোস্টার পোড়ানো হয় সে শহরে। এবার শাহরুখকে জীবিত পুড়িয়ে মারার হুমকি দিলেন হিন্দু সাধু পরমহংস আচার্য।

 

মূলত ‘পাঠান’ ছবি ঘিরে বিতর্কের সূত্রপাত ‘বেশরম রং’ গানে দীপিকা পাড়ুকোনের গেরুয়া বিকিনি থেকে। ছবির প্রথম গান প্রকাশ্যে আসার পর থেকে ‘অশ্লীল’ বলে দাগিয়ে দেওয়া হয়।

 

অযোধ্যার সাধু পরমহংস আচার্য জানান, ছবিতে গেরুয়া রঙের অপমান করা হয়েছে। ক্রমাগত সনাতন ধর্মের অপমান করা হচ্ছে। শুধু তাই নয়, হিন্দুদের ভাবাবেগে আঘাত করা যেন একটা ধারাতে রূপান্তরিত হয়েছে।

SD

ছবি: সংগৃহীতপরমহংস আচার্য আরও বলেন, ‘আজকে শুধু ওঁর পোস্টার পুড়িয়েছি। আমি খুঁজছি ওঁকে, যেদিন সামনাসামনি দেখা পাবো, পুড়িয়ে দেব জিহাদি খানকে।’

এখানেই থেমে থাকেননি এই সাধু। তিনি বলেন, ‘এই ছবি মুক্তি পেলে সিনেমাহল পর্যন্ত জ্বালিয়ে দেব। সনাতন ধর্ম নিয়ে ঠাট্টা, রসিকতা করলে প্রতিশোধ নেওয়া হবে।

শুধু গেরুয়া শিবির নয়, বেশ কয়েকটি দক্ষিণপন্থী রাজনৈতিক দল, এমনকি, কংগ্রেসেরও একাংশ ‘পাঠান’ নিষিদ্ধ করার দাবিতে সোচ্চার। বেশ কিছু মুসলিম সংগঠনও একই সুরে গলা মিলিয়েছে। সূত্র: আনন্দবাজার।