ঢাকা, ডিসেম্বর ১৬, ২০১৮, ২ পৌষ ১৪২৫, স্থানীয় সময়: ১৪:৫৩:৫৫

‘আইনের বাইরে গেলে কী হয়, নারায়ণগঞ্জের ঘটনায় তা দেখেছেন’ : র‌্যাব কর্মকর্তাকে আদালত

আইন ও মানবাধিকার, দেশের খবর | ১ অগ্রহায়ন ১৪২৫ | Thursday, November 15, 2018

ঝালকাঠি

ঝালকাঠির কাঠালিয়া উপজেলায় ইয়াবা দিয়ে ফাঁসিয়ে যুগলীগ নেতাকে আটকের পর নির্যাতনের ঘটনায় র‌্যাব-৮ এর ডিএডি মো. জহিরুল ইসলাম ও কাঁঠালিয়া থানার এসআই গাজী ফজলুর রহমানকে ভর্ৎসনা করেছেন করেছেন আদালত।

এসময় আদালত র‌্যাব ও পুলিশ কর্মকর্তাদের বলেন, ‘আইনের বাইরে গেলে কী হয় নারায়ণগঞ্জের ঘটনায় তা দেখেছেন।’

একই সঙ্গে নির্যাতনের শিকার যুবলীগ নেতা মো. রফিকুল ইসলামের জামিন মঞ্জুর করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার ঝালকাঠির সিনিয়র জুডিস্যিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক মো. সেলিম রেজা র‌্যাব-পুলিশ কর্মকর্তাদের ভর্ৎসনা ও যুবলীগ নেতার জামিন মঞ্জুর করেন। গত ৮ নভেম্বর আদালত র‌্যাব ও পুলিশের ওই দুই কর্মকর্তাকে আদালতে হাজির হওয়ার নির্দেশ দিয়েছিলেন।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, ঝালকাঠির কাঠালিয়া উপজেলার চেচরিরামপুর ইউনিয়ন যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক মো. রফিকুল ইসলাম ৬ নভেম্বর রাতে কৈখালী বাজার এলাকা থেকে র‌্যাবের অভিযানে ২৯ পিস ইয়াবাসহ গ্রেফতার হয়। এ ঘটনায় তার বিরুদ্ধে রাজাপুর থানায় র‌্যাবের ডিএডি মো. জহিরুল ইসলাম বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করেন।

৮ নভেম্বর ওই মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে কাঁঠালিয়া থানার এসআই গাজী মো. ফজলুর রহমান রফিকুল ইসলামকে আদালতে হাজির করে পাচঁ দিনের রিমান্ড আবেদন করেন। রিমান্ড শুনানির সময় রফিকুল আদালতকে জানান র‌্যাব সদস্যরা তাকে ইয়াবা দিয়ে ধরে ব্যাপক শারীরিক নির্যাতন করেছে। এ সময় আদালতের বিচারক মো. সেলিম রেজা রফিকুলকে পরীক্ষা করে তার শরীরের বিভিন্নস্থানে নির্যাতনের চিহ্ন দেখতে পান।

নির্যাতনের চিহ্ন দেখতে পেয়ে আদালত রফিকুলের রিমান্ড আবেদন বাতিল করে তাকে হাসপাতালে ভর্তির আদেশ দেন এবং মামলার বাদী র‌্যাব ৮ এর ডিএডি মো. জহিরুল ইসলাম এবং তদন্ত কর্মকর্তা গাজী ফজলুর রহমানকে আদালতে হাজির হওয়ার নির্দেশ দেন।

বৃহস্পতিবার ওই দুই কর্মকর্তা আদালতে হাজির হলে আদালতের বিচারক যুবলীগ নেতা রফিকুলের শরীরের নির্যাতনের চিহ্ন দেখিয়ে নির্যাতনের কারণ জানতে চান। এ সময় র‌্যাবের কর্মকর্তা কোনো সন্তোষজনক ব্যাখ্যা দিতে না পেরে নিশ্চুপ থাকেন।

আদালত তখন র‌্যাব কর্মকর্তার উদ্দেশে বলেন, ‘আপনারা কেউ আইনের ঊর্ধ্বে নয়। আইনের বাইরে গেলে কী হয়, নারায়ণগঞ্জের ঘটনায় তা দেখেছেন।’ এ পর্যায় আদালতে দুই কর্মকর্তাকে আগামী ২৫ নভেম্বর নির্যাতনের বিষয়ে লিখিত ব্যাখা দিতে নির্দেশ দেন।

আদালতে মো. রফিকুল ইসলামের আইনজীবী দাবি করেন, চেররিরামপুর ইউনিয়নের বিতর্কিত চেয়ারম্যান জাকির হোসেন ফরাজীর দ্বারা প্রভাবিত হয়ে র‌্যাব রফিকুল ইসলামকে ইয়াবা ট্যাবলেট দিয়ে গ্রেফতার এবং নির্যাতন করেছে। নির্যাতনের পর রফিকুল ইসলামের চিকিৎসা না করে উল্টো পাঁচ দিনের রিমান্ডে চান তদন্ত কর্মকর্তা।