ঢাকা, এপ্রিল ২৩, ২০১৮, ১০ বৈশাখ ১৪২৫, স্থানীয় সময়: ১৭:৪৪:০৯

এ পাতার অন্যান্য সংবাদ

দুদকের মামলার প্রত্যেক আসামিকে আইনের আওতায় আনতে হবে : ইকবাল মাহমুদ পয়লা বৈশাখে এফডিসিতে শোকের ছায়া কাশ্মীরে শিশু আসিফাকে ধর্ষণ-হত্যা, কবর দিতেও বাধা কোটা সম্পূর্ণ বাতিল, হাইকোর্ট বিভাগে রিট এবং বাংলাদেশের সংবিধান- বিবেক চন্দ্র, এ্যডভোকেট, ঢাকা জজ কোর্ট একুশ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলায় আসামীপক্ষে যুক্তিতর্ক পেশ অব্যাহত শিক্ষা ক্ষেত্রে কোনক্রমেই দুর্নীতি সহ্য করা হবে না : দুদক চেয়ারম্যান ‘স্বেচ্ছা রক্তদাতারা ৩৫ শতাংশ নিরাপদ রক্তের চাহিদা মেটান’ নরসিংদীতে সড়ক দুর্ঘটনায় চার জন নিহত লিভ মঞ্জুর : খালেদা জিয়ার জামিন স্থগিত দুদকে হাজির হতে সময় চেয়েছেন এ কে আজাদ

২০১৭ সালে মানবাধিকার পরিস্থিতি উদ্বেগজনক : আসক

আইন ও মানবাধিকার | ১৮ পৌষ ১৪২৪ | Monday, January 1, 2018

আইন ও সালিশ কেন্দ্র (আসক) - এর সংবাদ সম্মেলন

২০১৭ সালে অপহরণ ও গুমের খুনের শিকার হয়েছেন ৬০ জন নাগরিক। এটি রাষ্ট্রের জন্য বড় উদ্বেগের বিষয় বলে উল্লেখ করেছে আইন ও সালিশ কেন্দ্র (আসক)।

আজ রোববার (৩১ ডিসেম্বর) সকালে ২০১৭ সালে বাংলাদেশের মানবাধিকার পরিস্থিতিসহ সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে (ডিআরইউ) ‘বাংলাদেশের মানবাধিকার পরিস্থিতি ২০১৭: আসক’র পর্যবেক্ষণ’ শিরোনামে এক সংবাদ সম্মেলনে একথা জানানো হয়।

সংস্থাটির নির্বাহী পরিচালক শীপা হাফিজা মানবাধিকার পরিস্থিতির উন্নয়নে সংশ্লিষ্টদের আহ্বান জানান।

তিনি বলেন, এতো মানবাধিকার পরিস্থিতির অবনতি করে একটি দেশ চলতে পারে না। প্রতিবেদন পাঠ করেন আসকে’র সমন্বয়কারী আবু আহমেদ ফয়জুল কবির।

মানবাধিকার পরিস্থিতি তুলে ধরে আসক’র প্রতিবেদনে বলা হয়, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের পরিচয় দিয়ে অপহরণ, গুম ও গুপ্তহত্যার ঘটনার পাশাপাশি এ বছরে নিখোঁজ হওয়ার ক্ষেত্রে যুক্ত হয়েছে সাবেক রাষ্ট্রদূত, সরকারি কর্মকর্তা, শিক্ষক, প্রকাশক, শিক্ষার্থী, ব্যবসায়ী, সাংবাদিক, রাজনৈতিক নেতা। বিদায়ী বছরে (২০১৭ সালে) গুম হয়েছে ৬০ জন। এদের মধ্যে মরদেহ উদ্ধার হয়েছে ২ জনের, গ্রেফতার দেখানো হয়েছে ৮ জনকে, ফিরে এসেছেন ৭ জন, বাকীদের খোঁজ পাওয়া যায়নি।

ক্রসফায়ার, বন্দুকযুদ্ধসহ গুলিবিনিময়ের নামে ১৬২ জনকে বিচারবর্হিভূতভাবে হত্যা করা হয়।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, এ বছর মত প্রকাশের স্বাধীনতা বাধাগ্রস্ত হয়েছে। আইসিটি আইনের বিতর্কিত ৫৭ ধারা বাতিলের দাবিতে গণমাধ্যম কর্মীরা স্বোচ্চার থাকলেও এর অপপ্রয়োগ অব্যাহত ছিল। ৫৪ জন সাংবাদিক লেখকের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে।

১২২ সাংবাদিক হয়েছেন নির্যাতিত এবং একজন মৃত্যুর শিকার হয়েছেন।

আইন ও সালিশ কেন্দ্রের বার্ষিক প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, ২০১৭ সালে দেশে ধর্মীয় ক্ষেত্রে বিভিন্ন সময় বাধা ও প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করার অভিযোগ এসেছে। হিন্দু সম্প্রদায়ের ১২২টি প্রতিমা, পাশাপাশি ৪৫টি বাড়ি, ২১ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ভাঙা হয়।

২০১৭ সালে নারী নির্যাতন আশঙ্কাজনকভাবে বেড়েছে। ৮১৮ জন নারী ও শিশু ধর্ষণের শিকার হয়েছে। গত বছর তা ছিল ৬৫৯ জনে।

এছাড়া সীমান্ত হত্যা ও নির্যাতনে বিষয়ে প্রতিবেদনে বলা হয়, ২০১৭ সালে সীমান্তহত্যা ও নির্যাতন অব্যাহত ছিল। শীপা হাফিজা বলেন, ২০১৭ মানবাধিকার পরিস্থিতি পর্যালোচনায় বলতে হয়, এ মোটেও সন্তোষজনক নয়।, উদ্বেগজনক। আমরা এর পরিবর্তন চাই।