ঢাকা, ডিসেম্বর ১৭, ২০১৭, ৩ পৌষ ১৪২৪, স্থানীয় সময়: ১৬:০৯:২৩

এ পাতার অন্যান্য সংবাদ

এমপি হ্যাপি বড়ালের মেয়ে অদিতি বড়ালকে ছুরিকাঘাত। তুরাগ নদ দখল করে থাকা ৩০ প্রতিষ্ঠান উচ্ছেদের নির্দেশ ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা : প্রকৃত অপরাধীদের আড়াল করতেই নিরীহ জজ মিয়াকে দিয়ে মিথ্যা স্বীকারোক্তি দেয়ানো হয় : রাষ্ট্রপক্ষ ইকুইভ্যালেন্সি সার্টিফিকেটের আবেদন ফরম ও নিয়মাবলী বিচারকদের আচরণ বিধি প্রকাশ চতুর্থ শ্রেণির ছাত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টায় শ্রমিক লীগ নেতা গ্রেপ্তার ৬৭ শতাংশ সেবাগ্রহীতাকে ঘুষ দিতে হয় : ইফতেখারুজ্জামান ‘আপনার সময় ঘনিয়ে এসেছে’, অ্যাটর্নি জেনারেলকে হুমকি আদালতে হাজিরা দিয়ে দুই মামলায় জামিন পেলেন খালেদা জিয়া কোচিংবাজ শিক্ষকরা দুদকের জালে

সহকর্মীর বিরুদ্ধে করা মামলা প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত ঢাবি শিক্ষকের

আইন ও মানবাধিকার, দেশের খবর | ২ শ্রাবণ ১৪২৪ | Monday, July 17, 2017

8f5ba587d2b8fd183e845a3d4e4ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের অধ্যাপক ড. আবুল মনসুর আহাম্মদ নিজ বিভাগের সহকর্মী অধ্যাপক ড. ফাহমিদুল হকের বিরুদ্ধে দায়ের করা ৫৭ ধারার মামলা প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

বিভাগীয় চেয়ারপারসন অধ্যাপক মফিজুর রহমান স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে রোববার (১৬ জুলাই) এ তথ্য জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের একডেমিক কমিটির এক সভায় সিদ্ধান্ত হয়, ফাহমিদুল হক যদি গ্রুপে দেয়া তার স্ট্যাটাসের জন্য দুঃখ প্রকাশ করেন তাহলে ড. আবুল মনসুর আহাম্মদ মামলা প্রত্যাহারের বিষয়টি বিবেচনা করবেন। এর পরিপ্রেক্ষিতে ড. ফাহমিদুল হক ফেসবুকে দেয়া তার পোস্টের জন্য দুঃখ প্রকাশ করলে আবুল মনসুর আহাম্মদ মামলাটি প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নেন।

উল্লখ্য, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের মাস্টার্স শিক্ষার্থীদের ফলাফল প্রকাশে বিলম্ব হওয়ার বিষয়কে কেন্দ্র করে ফেসবুকের একটি ‘ক্লোজ গ্রুপে’ মতামত প্রকাশ করেন বিভাগের অধ্যাপক ফাহমিদুল হক। এর জের ধরে গত ১২ জুলাই তার বিরুদ্ধে ৫৭ ধারায় মামলা দায়ের করেন একই বিভাগের অধ্যাপক আবুল মনসুর আহাম্মদ।

মামলার এজাহারে আবুল মনসুর আহাম্মদ অভিযোগ করেছিলেন, ফাহমিদুল হক লিখেছেন, আবুল মনসুরের কারণে মাস্টার্সের ফলাফল প্রকাশে দীর্ঘসূত্রতায় পড়েছে। যে কারণে বিভাগের আরেক অধ্যাপক গীতি আরা নাসরিন বিপদে ও হয়রানির মধ্যে পড়েছেন এবং বিভাগের একাডেমিক পরিবেশ কলুষিত হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের কন্ট্রোলার অফিস ও প্রশাসনকে সঙ্গে নিয়ে সামান্য একটি ঘটনাকে জটিল করার বিষয়ে অসামান্য অবদান রাখা এবং শত্রুতামূলক উদ্যোগ গ্রহণের জন্যও ফাহমিদুল তাঁকে (আবুল মনসুরকে) অভিযুক্ত করেছেন বলে এজাহারে উল্লেখ করা হয়।