ঢাকা, ফেব্রুয়ারী ১৯, ২০১৯, ৭ ফাল্গুন ১৪২৫, স্থানীয় সময়: ২৩:৪২:২২

এ পাতার অন্যান্য সংবাদ

আজ শুভ নিত্যনন্দ ত্রয়োদশী একুশে পদক পেলেন জেলে পরিবারের হরিশংকর জলদাস ২১ মে থেকে সব বেসরকারি টিভি বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট ব্যবহার করবে বাংলাদেশ-ইউএই ৪টি সমঝোতা স্মারক সই বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় ধাপে বৃষ্টিতে মুসল্লীদের দুর্ভোগ : মঙ্গলবার সকালে আখেরী মোনাজাত রাষ্ট্রপতির ভাষণ বর্তমান সরকারের উন্নয়নের দলিল : সরকারি দল মুক্তিযুদ্ধে ভারতের অবদান কোনোদিন ভুলবার নয় : তথ্যমন্ত্রী সড়কে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে দু’টি কমিটি গঠন করা হয়েছে : সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী সংসদের সংরক্ষিত মহিলা আসনে ৪৯ জনকে চূড়ান্তভাবে বিজয়ী ঘোষণা আরব আমিরাতের প্রতিরক্ষা প্রদর্শনীতে প্রধানমন্ত্রী

সংরক্ষিত নারী আসনে ৪৯ জনের মনোনয়ন জমা

দেশের খবর | ২৯ মাঘ ১৪২৫ | Monday, February 11, 2019

 

বিএনপি ছাড়া সংসদে প্রতিনিধিত্বকারী অন্যান্য রাজনৈতিক দলগুলো তাদের সংরক্ষিত নারী প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছে। মোট ৪৯ জন সংরক্ষিত নারী প্রার্থী এই মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। বিএনপির একজন মনোনয়নপত্র জমা দেননি।

আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে দলের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের ৪৩ জনের মনোনয়নপত্র জমা দেন। এ ছাড়া জাতীয় পার্টির চারজন, ওয়াকার্স পার্টির একজন ও স্বতন্ত্র একজন মনোনয়নপত্র জমা দেন।

আজ সোমবার বিকেলে রাজধানীর আগারগাঁওয়ের নির্বাচন ভবনে রিটার্নিং কর্মকর্তা ও নির্বাচন কমিশনের যুগ্ম সচিব আবুল কাশেমের কাছে তাঁরা মনোনয়নপত্র জমা দেন। এ সময় নির্বাচন কমিশন সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ উপস্থিত ছিলেন।

আজ ছিল মনোনয়ন দাখিলের শেষ দিন। আগামীকাল মঙ্গলবার এসব মনোনয়নপত্র যাছাই-বাছাই করা হবে। সংরক্ষিত নারী আসনে ভোট আগামী ৪ মার্চ। তবে সমানসংখ্যক প্রার্থী থাকায় নির্বাচনের প্রয়োজন হবে না। ১৬ ফেব্রুয়ারি প্রত্যাহারের শেষ দিনই বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নাম ঘোষণা করা হবে।

আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা হলেন
ঢাকা থেকে শিরীন আহমেদ, জিন্নাতুল বাকিয়া, শবনম জাহান শিলা, সুবর্না মুস্তফা ও নাহিদ ইজহার খান, চট্টগ্রাম থেকে খাদিজাতুল আনোয়ার ও ওয়াসিকা আয়েশা খানম, কক্সবাজার থেকে কানিজ ফাতেমা আহমেদ, খাগড়াছড়ি থেকে বাসন্তী চাকমা, কুমিল্লা থেকে আঞ্জুম সুলতানা ও আরমা দত্ত, ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে উম্মে ফাতেমা নাজমা বেগম, গাজীপুর থেকে শামসুন্নাহার ভূঁইয়া ও রুমানা আলী, বরগুনা থেকে সুলতানা নাদিরা, জামালপুর থেকে হোসনে আরা, নেত্রকোনা থেকে হাবিবা রহমান খান শেফালী ও জাকিয়া পারভীন খানম, পিরোজপুর থেকে শেখ এ্যানী রহমান, টাঙ্গাইল থেকে অপরাজিতা হক ও খন্দকার মমতা হেনা লাভলী, সুনামগঞ্জ থেকে শামীমা আক্তার খানম, মুন্সীগঞ্জ থেকে ফজিলাতুন নেসা, নীলফামারী থেকে রাবেয়া আলীম, নংরসিদী থেকে তামান্না নুসরাত বুবলী, গোপালগঞ্জ থেকে নার্গিস রহমান, ময়মনসিংহ থেকে মনিরা সুলতানা, ঝিনাইদহ থেকে খালেদা খানম, বরিশাল থেকে সৈয়দা রুবিনা মিরা, পটুয়াখালী থেকে কাজী কানিজ সুলতানা, খুলনা থেকে অ্যাডভোকেট গ্লোরিয়া ঝর্ণা সরকার, দিনাজপুর থেকে জাকিয়া তাবাসসুম, নোয়াখালী থেকে ফরিদা খানম সাকী, ফরিদপুর থেকে রুশেমা বেগম, কুষ্টিয়া থেকে সৈয়দা রাশিদা বেগম, মৌলভীবাজার থেকে সৈয়দা জোহরা আলাউদ্দিন, রাজশাহী থেকে আদিবা আনজুম মিতা, চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে ফেরদৌসী ইসলাম জেসী, শরীয়তপুর থেকে পারভীন হক শিকদার, রাজবাড়ী থেকে খোদেজা নাসরীন আক্তার হোসেন, মাদারীপুর থেকে তাহমীনা বেগম, পাবনা থেকে নাদিয়া ইয়াসমিন জলি ও নাটোর থেকে রত্না আহমেদ।

জাতীয় পার্টির পক্ষ থেকে দলটির মহাসচিব মশিউর রহমান রাঙা তাঁদের চার প্রার্থীর মনোনয়নপত্র জমা দেন। এঁরা হলেন জাতীয় পার্টির সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য অধ্যাপিকা মাসুদা এম রশিদ চৌধুরী, সাবেক সাংসদ অ্যাডভোকেট সালমা ইসলাম, চেয়ারম্যানের উপদেষ্টা অধ্যক্ষ রওশন আরা মান্নান ও নাজমা আকতার।

এ ছাড়াও ওয়ার্কার্স পার্টির লুৎফুন নেসা খান ও স্বতন্ত্র প্রার্থী সেলিনা ইসলাম মনোনয়নপত্র জমা দেন।