ঢাকা, আগস্ট ১৬, ২০১৮, ১ ভাদ্র ১৪২৫, স্থানীয় সময়: ১৬:০১:৩৪

এ পাতার অন্যান্য সংবাদ

সারা দেশে জাতীয় শোকদিবস পালিত নেত্রকোনায় শোক দিবসের সমাবেশে আ. লীগের দুই পক্ষে সংঘর্ষ টুঙ্গীপাড়ায় জাতির পিতার সমাধিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা শোক দিবসে মিথ্যা জন্মদিন উৎসব রুচি বিকৃতি ও অশ্লীলতা : তথ্যমন্ত্রী কোটা সংস্কার কমিটি সুপারিশ প্রায় চূড়ান্ত করেছে : মন্ত্রিপরিষদ সচিব মাধ্যমিক শিক্ষার উন্নয়নে সরকার-বিশ্বব্যাংক ৫২০ মিলিয়ন ডলারের চুক্তি স্বাক্ষর ন্যায়বিচার নিশ্চিতকরণে সতর্ক থাকতে বিচারকদের প্রতি রাষ্ট্রপতির আহ্বান দাওরায়ে হাদিস (তাকমিল) পেল স্নাতকোত্তর ডিগ্রীর সমমান প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে পশ্চিমবঙ্গের বিজেপি নেতা অনিন্দ্য গোপাল মিত্রের সাক্ষাৎ কোটালীপাড়ায় অ্যাডঃ রবীন্দ্র ঘোষ ও তার প্রতিনিধি দলের উপর হামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল ।

মন্ত্রীর নেতা যোগ দিলেন বিশেষ দূতের দলে

দেশের খবর | ২৫ শ্রাবণ ১৪২৫ | Thursday, August 9, 2018

 

জাতীয় পার্টির মহাসচিব সাংসদ এ বি এম রুহুল আমিন হাওলাদারের হাতে ফুল দিয়ে দলটিতে যোগ দেন নজরুল ইসলাম। ছবি : সংগৃহীত

পানিসম্পদমন্ত্রী আনোয়ার হোসেন মঞ্জু নেতৃত্বাধীন জাতীয় পার্টির (জেপি) সাংগঠনিক সম্পাদক নজরুল ইসলাম প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিশেষ দূত হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের জাতীয় পার্টিতে (জাপা) যোগ দিয়েছেন। তাঁর যোগদানের অনুষ্ঠানে জাপার মহাসচিব এ বি এম রুহুল আমিন হাওলাদার বলেছেন, ‘আগামী ঈদুল আজহার পরে অনেক পরিচিত নেতাই যোগ দেবেন জাপায়।’

আজ বৃহস্পতিবার জাপার চেয়ারম্যানের বনানী কার্যালয়ে আয়োজিত অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন রুহুল আমিন হাওলাদার। জাপার সংবাদবিজ্ঞপ্তিতে এসব কথা বলা হয়। জাপায় যোগ দেওয়া নজরুল ইসলাম ছিলেন জেপির বরিশাল বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক।

এ বি এম রুহুল আমিন হাওলাদার বলেন, ‘আগামী নির্বাচনে জাতীয় পার্টি একটি সম্ভাবনাময় শক্তি হিসেবে আবির্ভূত হচ্ছে। তাই প্রতিদিনই বিভিন্ন দলের নেতাকর্মীরা জাতীয় পার্টিতে যোগ দিচ্ছেন। আগামী ঈদুল আজহার পরে আরো অনেক পরিচিত নেতাই যোগ দেবেন জাতীয় পার্টির পতাকাতলে। আর দুই-এক দিনের মধ্যে বড় একটি ইসলামী শক্তি যোগ দিচ্ছে জাতীয় পার্টির সাথে।’

রুহুল আমিন হাওলাদার আরো বলেন, ‘আওয়ামী লীগ ও বিএনপির ২৭ বছরের শাসনামলে দেশের মানুষ ক্ষত-বিক্ষত। দুটি দলের অপরাজনীতিতে দেশে সামাজিক ও রাজনৈতিক অবক্ষয় সৃষ্টি হয়েছে। গুম, হত্যা, নির্যাতন, চাঁদাবাজি ও টেন্ডারবাজি থেকে মুক্তি চায় দেশের মানুষ। দেশের মানুষ ফিরে যেতে চায় পল্লীবন্ধু সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের শাসনামলে। শুধু হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের শাসনামলই দেশের মানুষকে মুক্তি দিতে পারে। দেশের মুক্তির জন্য হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের শাসনামলের বিকল্প নেই।’ নির্বাচনের আগে তৃণমূলে দলকে আরো শক্তিশালী করতেও আহ্বান জানান রুহুল আমিন হাওলাদার।

অধ্যাপক মো. জুলফিকার আলীর সভাপতিত্বে যোগদান অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন জাতীয় পার্টির সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য আবুল কাশেম, সুনীল শুভ রায়, মেজর (অব.) খালেদ আখতার, শফিকুল ইসলাম সেন্টু। উপস্থিত ছিলেন পার্টির ভাইস চেয়াম্যান ইকবাল হোসেন রাজু, যুগ্ম মহাসচিব মোস্তাকুর রহমান মোস্তাক, জহিরুল আলম রুবেল, সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য জসিম ভূঁইয়া, মনিরুল ইসলাম মিলন, আমির হোসেন ভূঁইয়া, ফখরুল আহসান শাহজাদা, মো. হেলাল উদ্দিন, গোলাম মোস্তফা, এমএ রাজ্জাক খান, রেজাউল করিম, কেন্দ্রীয় নেতা ফজলে এলাহী সোহাগ, আবদুস সাত্তার, মিজানুর রহমান দুলাল, মো. আবদুল করিম, আল আমিন মুন্না, আবদুল্লাহ আল ফাত্তাহ। এ ছাড়া পিরোজপুরের জাতীয় পার্টির নেতা বশির আহমেদ, এইচএম ইউসুফ, মো. নুরুজ্জামান লিটন, মো. আবদুস সালাম, তনিকুল হক, হাজী মো. ওয়ালিউল্লাহ ও শেখ শান্ত উপস্থিত ছিলেন।