ঢাকা, ডিসেম্বর ১৭, ২০১৭, ৩ পৌষ ১৪২৪, স্থানীয় সময়: ১৫:৪৩:৪৬

এ পাতার অন্যান্য সংবাদ

এমপি হ্যাপি বড়ালের মেয়ে অদিতি বড়ালকে ছুরিকাঘাত। তুরাগ নদ দখল করে থাকা ৩০ প্রতিষ্ঠান উচ্ছেদের নির্দেশ ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা : প্রকৃত অপরাধীদের আড়াল করতেই নিরীহ জজ মিয়াকে দিয়ে মিথ্যা স্বীকারোক্তি দেয়ানো হয় : রাষ্ট্রপক্ষ ইকুইভ্যালেন্সি সার্টিফিকেটের আবেদন ফরম ও নিয়মাবলী বিচারকদের আচরণ বিধি প্রকাশ চতুর্থ শ্রেণির ছাত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টায় শ্রমিক লীগ নেতা গ্রেপ্তার ৬৭ শতাংশ সেবাগ্রহীতাকে ঘুষ দিতে হয় : ইফতেখারুজ্জামান ‘আপনার সময় ঘনিয়ে এসেছে’, অ্যাটর্নি জেনারেলকে হুমকি আদালতে হাজিরা দিয়ে দুই মামলায় জামিন পেলেন খালেদা জিয়া কোচিংবাজ শিক্ষকরা দুদকের জালে

বিদেশি টিভিতে দেশি বিজ্ঞাপন প্রচার বন্ধে রিট

আইন ও মানবাধিকার | ৫ আশ্বিন ১৪২৪ | Wednesday, September 20, 2017

 

বিদেশি টিভি চ্যানেলে বাংলাদেশি পণ্যের বিজ্ঞাপন প্রচার বন্ধের নির্দেশনা চেয়ে হাইকোর্টে রিট করা হয়েছে।

আজ বুধবার দুপুরে হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় রিটটি দায়ের করেন আইনজীবী একলাছ উদ্দিন ভূঁইয়া।

আগামী সপ্তাহে হাইকোর্টের অবকাশকালীন বেঞ্চে রিট আবেদনটির ওপর শুনানি হতে পারে বলে জানিয়েছেন রিটকারীর আইনজীবী।

রিটে তথ্য সচিব, বাণিজ্য সচিব, রাজস্ব বোর্ডের চেয়ারম্যান, বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর, বিটিআরসির চেয়ারম্যান, বিটিভির মহাপরিচালক ও পুলিশের আইজিকে বিবাদী করা হয়েছে।

রিটকারি আইনজীবী একলাছ উদ্দিন ভূঁইয়া বলেন, ২০০৬ সালের ক্যাবল টেলিভিশন নেটওয়ার্ক কার্যক্রম পরিচালনা আইনের ১৯ ধারার ১৩ উপধারায় বলা হয়েছে, ‘বাংলাদেশের দর্শকদের জন্য বিদেশি কোনো টিভি চ্যানেলের মাধ্যমে বিজ্ঞাপন প্রচার করা যাবে না। কিন্তু সম্প্রতি বিদেশি টিভি চ্যানেলে অহরহ বিজ্ঞাপন প্রচার করা হচ্ছে এবং অবৈধভাবে কতিপয় কোম্পানি ওই সব বিদেশি চ্যানেলে বিজ্ঞাপন প্রচার করে দেশের সম্পদ বিদেশে পাচার করছে। এতে দেশীয় চ্যানেলেগুলো ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে।’

প্রসঙ্গত, বাংলাদেশে সম্প্রচার হয় এমন বিদেশি চ্যানেলে দেশীয় পণ্যের বিজ্ঞাপন প্রচার বন্ধের দাবি জানিয়ে আসছিল টেলিভিশন চ্যানেল মালিক, কলা-কুশলী-বিজ্ঞাপন দাতাদের সংগঠন ‘মিডিয়া ইউনিটি।’

সংগঠনটির নেতাদের দাবি, কিছু বিদেশি চ্যানেলের বাংলাদেশে প্রচার করা অনুষ্ঠানে বাংলাদেশি বিজ্ঞাপন দেখানো হয়। এসব বিজ্ঞাপন ওই দেশে না দেখিয়ে কেবল বাংলাদেশি দর্শকদের দেখানো হয় যা বেআইনি।

এ ধরনের বিজ্ঞাপন বন্ধের দাবি জানিয়ে তারা বলেন, এভাবে বিজ্ঞাপন প্রচারের কারণে অর্থপাচার হচ্ছে এবং দেশীয় টেলিভিশন চ্যানেল মালিকরা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে।