ঢাকা, ডিসেম্বর ১৬, ২০১৮, ২ পৌষ ১৪২৫, স্থানীয় সময়: ১৪:১৫:১৮

নড়াইলে শেষ হলো বিজয় সরকার মেলা

স্বাস্থ্য ও বিনোদন | ২২ অগ্রহায়ন ১৪২৫ | Thursday, December 6, 2018

নড়াইল : জেলায় চারণ কবি বিজয় সরকারের ৩৩তম প্রয়ান দিবস উপলক্ষে দুই দিনব্যাপী মেলা শেষ হয়েছে। বুধবার শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে “বিজয়ের গানে মানব মুক্তি” শীর্ষক সেমিনারে সভাপতিত্ব করেন, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব অধ্যাপক মুন্সি হাফিজুর রহমান। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন জেলা প্রশাসক আনজুুমান আরা।
এসময় আরো বক্তব্য রাখেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. শরফুদ্দীন, মেহেরপুর সরকারি মহিলা কলেজের সহযোগি অধ্যাপক ড. গাজী রহমান, জেলা পরিষদ সদস্য রওশন আরা লিলি, নড়াইল প্রেসক্লাব সভাপতি মো. আলমগীর সিদ্দিকী, লোক সংস্কৃতি গবেষক খলিলউল্লা দিলদারাজ, বিজয় সরকার ফাউন্ডেশনের যুগ্ম আহবায়ক এস,এম আকরাম শাহীদ চুন্ন, চারণ কবি বিজয় সরকার ফাউন্ডেশনের সদস্য সচিব সহকারি কমিশনার মুহাম্মদ আল-আমিন প্রমুখ।
এবছর বাগেরহাটের রামপাল উপজেলার কবিয়াল শ্যামল সরকারকে বিজয় সরকার স্বর্ণ পদক প্রদান করা হয়। এছাড়া বিজয় গবেষক হিসেবে নড়াইলের কালিয়া উপজেলার কলাবাড়িয়া গ্রামের কবি মহসিন হোসেন, বিজয় নান্দীকার হিসেবে সদর উপজেলার মাইজপাড়া গ্রামের শিল্পী বলদেব অধিকারী, বিজয়গীতি শিল্পী হিসেবে কানাই লাল কুন্ডু, বিজয় সাথী হিসেবে বিএম ফসিয়াররহমান, মুলিয়া গ্রামের রবীন্দ্রনাথ অধিকারী, বালিয়াডাঙ্গা গ্রামের মো. আসাদুজ্জামান এবং মো. ্ওয়াহিদুর রহমানকে সম্মাননায় ভূষিত করা হয়।
বিজয় সরকার স্বর্ণপদক প্রাপ্ত কবিয়াল শ্যামল সরকার তার অনুভূতি প্রকাশ করতে গিয়ে বলেন, বিজয় সরকার ছিলেন কবিয়ালদের গুরু। এমন একজন নামকরা গুণী কবিয়ালের নামাঙ্কিত পদক পেয়ে আমার জীবন ধন্য হয়েছে। এর চেয়ে বড় প্রাপ্তি আমার কাছে আর কিছু নেই । তার ভাবান্তর, লেখনি গায়কী ঢং ছিল ঈর্ষণীয়। তার মতো করে আর কেউ কোনো দিন কবিগান গাইতে পারবে কিনা আমার জানা নেই। গুরুদেবের চরণে বিনম্র শ্রদ্ধা জানান তিনি।
প্রসঙ্গত, বিরল ব্যক্তিত্ব ও প্রতিভা সম্পন্ন আধ্যাতিœক পুরুষ কবি আল বিজয় সরকার ১৯০২ সালের ২০ ফেব্রুয়ারী নড়াইল সদর উপজেলার ডুমদি গ্রামে পিতা নবকৃষ্ণ অধিকারী ও মাতা হিমালয় অধিকারীর সংসারে জন্ম গ্রহণ করেন। ১৯৮৫ সালের ৪ ডিসেম্বর ভারতের বেলুটিয় নামকস্থানে কণ্যা বুলবুলির বাড়ি বিধান পল্লীতে মৃত্যু বরন করেন তিনি।