ঢাকা, আগস্ট ১৬, ২০১৮, ১ ভাদ্র ১৪২৫, স্থানীয় সময়: ১৬:০১:১০

এ পাতার অন্যান্য সংবাদ

সারা দেশে জাতীয় শোকদিবস পালিত নেত্রকোনায় শোক দিবসের সমাবেশে আ. লীগের দুই পক্ষে সংঘর্ষ টুঙ্গীপাড়ায় জাতির পিতার সমাধিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা শোক দিবসে মিথ্যা জন্মদিন উৎসব রুচি বিকৃতি ও অশ্লীলতা : তথ্যমন্ত্রী কোটা সংস্কার কমিটি সুপারিশ প্রায় চূড়ান্ত করেছে : মন্ত্রিপরিষদ সচিব মাধ্যমিক শিক্ষার উন্নয়নে সরকার-বিশ্বব্যাংক ৫২০ মিলিয়ন ডলারের চুক্তি স্বাক্ষর ন্যায়বিচার নিশ্চিতকরণে সতর্ক থাকতে বিচারকদের প্রতি রাষ্ট্রপতির আহ্বান দাওরায়ে হাদিস (তাকমিল) পেল স্নাতকোত্তর ডিগ্রীর সমমান প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে পশ্চিমবঙ্গের বিজেপি নেতা অনিন্দ্য গোপাল মিত্রের সাক্ষাৎ কোটালীপাড়ায় অ্যাডঃ রবীন্দ্র ঘোষ ও তার প্রতিনিধি দলের উপর হামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল ।

নিরাপদ সড়কের দাবিতে সারা দেশে বিক্ষোভ

দেশের খবর, প্রধান সংবাদ | ১৮ শ্রাবণ ১৪২৫ | Thursday, August 2, 2018

নিরাপদ সড়কের দাবিতে এবং রাজধানীর কুর্মিটোলায় বাসচাপায় দুই শিক্ষার্থী নিহতের ঘটনায় সারা দেশে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করেছে  স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীরা। আজ বৃহস্পতিবার সকাল থেকে শিক্ষার্থীদের রাস্তায় দেখা যায়। তারা স্লোগান দেয়, ‘উই ওয়ান্ট জাস্টিস।’গত ২৯ জুলাই রাজধানীর কুর্মিটোলার বিমানবন্দর সড়কে জাবালে নূর পরিবহনের বাসের চাপায় দুই কলেজ শিক্ষার্থী নিহত হয়। এ ছাড়া আহত হয় বেশ কয়েকজন। নিহত শিক্ষার্থীরা হলো শহীদ রমিজ উদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজের একাদশ শ্রেণির বিজ্ঞান বিভাগের ছাত্রী দিয়া খানম মিম ও দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্র আবদুল করিম রাজীব।

এ ঘটনার প্রতিবাদে রাস্তায় বিক্ষোভে ফেটে পড়ে শিক্ষার্থীরা। টানা পাঁচ দিন রাজধানীর সড়ক অবরোধ করে তারা। তাদের ডাকে সারা দেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়েছে।

রাজশাহী :  সকাল সাড়ে ১০টার দিকে বিভিন্ন স্কুল ও কলেজের শিক্ষার্থীরা এসে নগরীর সাহেববাজার জিরো পয়েন্টে অবস্থান নিয়ে মানববন্ধনে অংশ নেয়। ‘উই ওয়ান্ট জাস্টিস’, ‘নিরাপদ সড়ক চাই’সহ বিভিন্ন স্লোগান লেখা প্ল্যাকার্ড হাতে মানববন্ধনে দাঁড়িয়ে তারা শিক্ষার্থী হত্যার বিচার এবং সড়কে নিজেদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার দাবি জানাচ্ছে।

আন্দোলনরত শিক্ষার্থীসহ সার্বিক নিরাপত্তার স্বার্থে নগরীতে পুলিশি নিরাপত্তা বাড়ানো হয়েছে। রাজশাহী মহানগর পুলিশের মুখপাত্র জানিয়েছেন, শিক্ষার্থীদের আন্দোলন শেষ না হওয়া পর্যন্ত পুলিশ তাদের নিরাপত্তা দেবে।

এদিকে, শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তার কথা বিবেচনা করে সরকারি সিদ্ধান্তে রাজশাহীর সব ধরনের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে।

চট্টগ্রাম : সকালে চট্টগ্রামের ওয়াসা মোড়, ষোলশহর এলাকায় নগরীর বিভিন্ন স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীরা অবস্থান নিয়ে কর্মসূচি পালন করছে। এর আগে চট্টগ্রামের বিভিন্ন কলেজের শিক্ষার্থীরা মিছিল নিয়ে ওয়াসা মোড়ে আসে। সেখানে অবস্থান নিয়ে শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন যানবাহনের কাগজপত্র পরীক্ষা করে দেখে। শিক্ষার্থীদের কর্মসূচি চলাকালে নগরীতে ব্যাপক যানজটের সৃষ্টি হয়। নিরাপদ সড়কের দাবির পাশাপাশি নিরাপদ যানবাহন, ক্ষতিগ্রস্ত দুই ছাত্রের পরিবারকে ক্ষতিপূরণ ও দোষী ব্যক্তিদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানানো হয় কর্মসূচি থেকে।

বরগুনা : বেলা ১১টার দিকে বৃষ্টি উপেক্ষা বরগুনার টাউন হল ও বরগুনা প্রেসক্লাব সংলগ্ন সদর রোড এলাকায় সড়ক অবরোধ করে আন্দোলন করে শিক্ষার্থীরা। এতে বন্ধ হয়ে যায় ওই দুই সড়কের যান চলাচল।এ সময় আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন যানবাহনে চেক করতে দেখা যায়। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন জেলা পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। এ সময় বরগুনায় নিরাপদ সড়কের দাবিতে শিক্ষার্থীদের বেশ কিছু দাবি মেনে নিলে সড়ক থেকে সরে যায় তারা।

আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা বলে, ‘আমাদের সহপাঠীর মৃত্যু হয়েছে। আমরা আমাদের ভাই হত্যার বিচার দাবিতে আন্দোলনে নেমেছি। আমরা কারো উসকানিতে আন্দোলন করছি না।’ যত দিনে নিরাপদ সড়কের সকল দাবি বাস্তায়ন না হবে, তত দিন এ আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দেয় তারা।

এ বিষয়ে বরগুনার পুলিশ সুপার বিজয় বসাক বলেন,  আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সব দাবি মেনে নেওয়া হয়েছে। এখন থেকেই তাদের সব দাবি বাস্তবায়নের কাজ করবে বরগুনা জেলা পুলিশ। তিনি আরো বলেন, শিক্ষার্থীদের সব দাবি মেনে নেওয়ার পর তারা সড়ক থেকে সরে দাঁড়িয়েছে। বর্তমানে এই সড়কে যান চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে। আর কোনো ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে পুলিশ সচেতন রয়েছে বলেও  জানান তিনি।

ভৈরব : বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করেছে কিশোরগঞ্জের ভৈরবের শিক্ষার্থীরা। বেলা সাড়ে ১১টার দিকে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের ভৈরব বাসস্ট্যান্ড দুর্জয় চত্বর পাদদেশে অবস্থান নিয়ে তারা এই কর্মসূচি পালন করে। এ সময় তারা নিরাপদ সড়কের দাবি এবং ঢাকায় বাসচাপায় হতাহত এবং আন্দোলনের সময় পুলিশি নির্যাতদের শিকার শিক্ষার্থীদের পক্ষে বিভিন্ন স্লোগান দেয়।

এর আগে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে ভৈরবের ঐতিহ্যবাহী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হাজী আসমত আলী অনার্স কলেজের মাঠে সমবেত হয় বিক্ষোভে অংশ নেওয়া শিক্ষার্থীরা। সেখান থেকে বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে দুর্জয় চত্বরে হাজির হয়ে প্রায় আধা ঘণ্টা অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভসহকারে বিভিন্ন স্লোগান দেয়। পরে আবারও সেখান থেকে মিছিল করতে করতে ফিরে যায়। কর্মসূচি চলাকালে ঢাকা-সিলেট ও ভৈরব-কিশোরগঞ্জ-ময়মনসিংহ মহাসড়কে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া : ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বিক্ষোভ করেছে শিক্ষার্থীরা। সকালে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরকারি কলেজ প্রাঙ্গণ থেকে বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীদের একটি মিছিল বের হয়ে শহরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে কুমিল্লা-সিলেট মহাসড়কের কাউতলীতে কিছুক্ষণ অবস্থান নেয়। পরে মিছিলটি পুনরায় বের হয়ে স্থানীয় প্রেসক্লাবের সামনে এসে শেষ হয়। এ সময় বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা বাসচাপায় দুই শিক্ষার্থীর মৃত্যুর দায়ীদের দৃষ্টান্তমূলক বিচার ও নয় দফা দাবি বাস্তবায়নে আহ্বান জানায়।

 দিনাজপুর : মানববন্ধন ও বিক্ষোভ চলাকালে দিনাজপুর শহরের লাইসেন্সবিহীন বাস, ট্রাক, মোটরসাইকেল, কার, অটোরিকশাসহ প্রতিটি গাড়ি চেক করে শিক্ষার্থীরা। শহরের লিলির মোড়ে সকাল ৯টা থেকে বিভিন্ন স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীরা পরিচয়পত্র নিয়ে রাস্তায় মানববন্ধন ও বিক্ষোভ করে। এ ছাড়া দিনাজপুর সরকারি কলেজ, দিনাজপুর সরকারি সিটি কলেজ, দিনাজপুর মহিলা কলেজ, হলিল্যান্ড কলেজ, জিলা স্কুল, রয়েল রেসিডেন্সিয়াল স্কুল, বাংলা স্কুলের শিক্ষার্থীরা নিরাপদ সড়কের দাবিতে এ আন্দোলন করে।

ফরিদপুর : সারা দেশের মতো ফরিদপুরে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীরা মিছিল ও মানববন্ধন করেছে। সরকারিভাবে স্কুল বন্ধ থাকলেও স্কুল-কলেজের ছাত্রছাত্রীরা রাস্তায় নেমে এসে শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি পালন করে। সকাল ১০টার দিকে শহরের হাই স্কুল মার্কেটের সামনে বিভিন্ন স্কুল ও কলেজের শিক্ষার্থীরা জড়ো হয়ে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করে। মিছিলটি শহরের প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে ফরিদপুর প্রেসক্লাবে গিয়ে শেষ হয়। পরে সেখানে নিরাপদ সড়কের দাবিতে নয় দফা প্রস্তাব নিয়ে ঘণ্টাব্যাপী মানববন্ধন করে তারা। এ সময় ওই সড়কে সাময়িকভাবে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। মানববন্ধন শেষে আবার বিক্ষোভ মিছিল করে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে দ্বিতীয় গেটে গিয়ে তারা তাদের কর্মসূচি শেষ করে।গাজীপুর : বিভিন্ন স্থানে কলেজ  শিক্ষার্থীরা ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক অবরোধ করে। এ সময় যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। সকাল ১০টার দিকে টঙ্গীর কয়েকটি স্কুল ও কলেজের শিক্ষার্থীরা টঙ্গীর কলেজগেট এলাকায় শান্তিপূর্ণভাবে বিক্ষোভ মিছিল শুরু করে। হঠাৎ করে পুলিশ তাদের ওপর লাঠিচার্জ করলে পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। কয়েকজন ছাত্র আহত হয়। এ সময় তারা একটি গাড়ি ভাংচুর করে। এর পর থেকে আরো শিক্ষার্থী তাদের আন্দোলনের সঙ্গে যোগ দিয়ে সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করতে থাকে।

অপরদিকে, ঢাকা-টঙ্গাইল মহাসড়কের চন্দ্রা মোড় এলাকায়ও শিক্ষার্থীরা সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করছে।

যশোর : বেলা সাড়ে ১১টায় স্কুল-ড্রেস পরা কয়েকশ শিক্ষার্থী বিক্ষোভ মিছিল সহকারে যশোর প্রেসক্লাবের সামনে গিয়ে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করে। এ সময় সেখানে বিপুলসংখ্যক পুলিশ উপস্থিত ছিল। মানববন্ধন কর্মসূচি শেষে এসব শিক্ষার্থী পুরো শহরে বিক্ষোভ মিছিল করে। মিছিল থেকে দুই শিক্ষার্থী নিহতের ঘটনার বিচার এবং সড়কে প্রাণহানি বন্ধের দাবিতে স্লোগান দেওয়া হয়। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত দুপুর ১টা পর্যন্ত শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন সড়কে বিক্ষোভ মিছিল করছিল।

নওগাঁ : শহরের মুক্তির মোড় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের সামনে প্রধান সড়কে এই মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করা হয়। সকাল ১০টায় শহরের বিভিন্ন এলাকা থেকে সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, জিলা স্কুল, পিএম বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, সেন্ট্রাল বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, নওগাঁ সরকারি কলেজ, সরকারি মহিলা কলেজ, পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটসহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা এ মানববন্ধনে অংশগ্রহণ করে।

সড়ক দুর্ঘটনার দায়ী বাসচালকের শাস্তির দাবি জানিয়ে এবং নিরাপদ সড়ক নিশ্চিত করার আহ্বান জানিয়ে বক্তব্য দেন সরকারি কলেজের শিক্ষার্থী মিজানুর রহমান, পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের শিক্ষার্থী ফজলে রাব্বী, পিএম বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী মায়া, জেলা স্কুলের শিক্ষার্থী সাদিক আব্দুল্লাহ। পরে তারা একটি মিছলসহ গিয়ে জেলা প্রশাসক বরাবর নিরাপদ সড়ক চাই দুর্ঘটনাকবলিত বাসের চালককে অবিলম্বে গ্রেপ্তার করে শাস্তির আওতায় আনার দাবিসংবলিত একটি স্মারকলিপি পেশ করে।

কুষ্টিয়া : সকাল ১১টায় কুষ্টিয়া শহরের মজমপুর এলাকায় মানববন্ধন শুরু করে শিক্ষার্থীরা। শিক্ষার্থীরা বলে, ‘আমরা বাঁচতে চাই এবং সড়ক দুর্ঘটনায় স্কুল শিক্ষার্থী নিহতের ঘটনার বিচার চাই।’ এ সময় ব্যানার-ফেস্টুন নিয়ে নিরাপদ সড়কের দাবি করে শিক্ষার্থীরা। মনববন্ধন শেষ করে সেখান থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করে তারা। মিছিলটি কুষ্টিয়া শহরের প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে বড়বাজার এলাকয় এসে শেষ হয়। এতে কুষ্টিয়ার বিভিন্ন স্কুল ও কলেজের কয়েকশ সাধারণ শিক্ষার্থীরা অংশ নেয়।মাগুরা : সকাল ১১টায় মাগুরার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা বিক্ষোভ মিছিল করেছে। মাগুরা হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী কলেজ চত্বর থেকে মিছিল শুরু হয়ে শহর প্রদক্ষিণ শেষে কলেজ গেটের সামনে অবস্থান নেয়। এ সময় তারা ঘাতক চালকের ফাঁসির দাবিসহ নিরাপদ সড়কের দাবি জানায়।

মেহেরপুর : নিরাপদ সড়ক ও ছাত্র হত্যার বিচারের দাবিতে মেহেরপুরে মানববন্ধন করেছে সাধারণ ছাত্ররা। বেলা সাড়ে ১১টার দিকে মেহেরপুর প্রেসক্লাবের সামনে এই মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়। বিভিন্ন বিদ্যালয় ও কলেজের শিক্ষার্থীরা মানববন্ধনে অংশ নেয়। ঘণ্টাব্যাপী মানববন্ধনে শিক্ষার্থীরা নিরাপদ সড়ক, ছাত্র হত্যার বিচারসহ তাদের দাবি মেনে নিতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানায়।

নাটোর : বেলা ১১টার দিকে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা নাটোর শহরের ছায়াবাণী মোড় ও কাইনাইখালী এলাকায় বিক্ষোভ মিছিল করে। পরে তারা প্রেসক্লাবের সামনে সমবেত হয়ে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করে। এ সময় শিক্ষার্থীরা নৌমন্ত্রীর পদত্যাগ দাবি করে অবিলম্বে তাদের নয় দফা দাবি বাস্তবায়নের আহ্বান জানায়।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ : সকালে চাঁপাইনবাবগঞ্জ সরকারি কলেজ মোড়ে বঙ্গবন্ধু মুক্ত মঞ্চের সামনে ছাত্রসমাজের ব্যানারে ঘণ্টাব্যাপী এই মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। এতে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীসহ সামাজিক সংগঠনের নেতারা অংশ নেন। মানববন্ধন চলাকালে অনুষ্ঠিত সংক্ষিপ্ত সমাবেশে বক্তব্য দেয় চাঁপাইনবাবগঞ্জ সরকারি কলেজের শিক্ষার্থী ফাহিম, আতিকুর রহমান।

এ সময় বক্তারা নিরাপদ সড়ক দাবির পাশাপাশি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে নিরাপদে বাড়ি ফিরে যাওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানান।