ঢাকা, মে ২৪, ২০১৮, ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫, স্থানীয় সময়: ০২:৪৩:২৪

এ পাতার অন্যান্য সংবাদ

‘রোহিঙ্গা সঙ্কট’ সমাধানে আন্তর্জাতিক আইনের পূর্ণ ব্যবহার প্রয়োজন : মাসুদ বিন মোমেন লিগ্যাল এইড অফিসে বিকল্প উপায়ে বিরোধ নিষ্পত্তি হচ্ছে যুদ্ধাপরাধের মামলায় ৩৩ তম রায়ের অপেক্ষা খালেদা জিয়ার জামিন বহাল, ৩১ জুলাইয়ের মধ্যে আপিল নিস্পত্তির নির্দেশ গণপরিবহনে নারী নির্যাতন বন্ধে সুনির্দিষ্ট নীতিমালা প্রণয়নের সুপারিশ শিশুশ্রম নিরসনে নানা উদ্যোগ : মালিকদের বিরুদ্ধে ১৩৪টি মামলা দায়ের ঢাবিতে আম পাড়তে গিয়ে ছাত্রের মৃত্যু যৌতুক দাবি করলে পাঁচ বছরের জেল, ৫০ হাজার টাকা জরিমানা ময়মনসিংহে বাস ও অটোরিক্সার মুখোমুখী সংঘর্ষে পিতা ও পুত্রসহ ৬ জন নিহত ফুলপুরে যুবলীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা

ঢাবিতে আম পাড়তে গিয়ে ছাত্রের মৃত্যু

আইন ও মানবাধিকার | ২৯ বৈশাখ ১৪২৫ | Saturday, May 12, 2018

 

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গাছ থেকে আম পাড়ার পর শেখ ওমর তৌফিক। ছবিটি তাঁর ফেসবুক থেকে নেওয়া।

দুই হাতভর্তি আম নিয়ে গত ৩ মে নিজের ফেসবুকে দুটি ছবি পোস্ট করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উর্দু বিভাগের প্রথম বর্ষের ছাত্র শেখ ওমর তৌফিক। ফেসবুকে লিখেছিলেন, ‘আম আর আম। আমের রাজ্যে পৃথিবী মোহ ময়। তবে আমের কথা আর নাহি লিখি। এবার আপনারা বলুন, কে কোন হাতের আম চান?’

সেই আম পাড়তে গিয়েই প্রাণ গেল তৌফিকের। গতকাল মঙ্গলবার রাতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) কেন্দ্রীয় মসজিদের একটি আমগাছ থেকে পড়ে আহত হন তিনি। আজ বুধবার দুপুর দেড়টার দিকে রাজধানীর জাপান-বাংলাদেশ ফ্রেন্ডশিপ হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাঁর মৃত্যু হয়।

তৌফিকের গ্রামের বাড়ি সাতক্ষীরার কালীগঞ্জ উপজেলায়। বিশ্ববিদ্যালয়ের কবি জসীমউদদীন হলের আবাসিক শিক্ষার্থী ছিলেন তিনি।

তৌফিকের মৃত্যুর বিষয়টি এনটিভি অনলাইনকে নিশ্চিত করেছেন ওই হলের জ্যেষ্ঠ আবাসিক শিক্ষক মাহামুদুল হাসান।

তৌফিকের বন্ধু হোসেন আলী জানান, মঙ্গলবার রাতে ঢাবির কেন্দ্রীয় মসজিদসংলগ্ন একটি গাছে আম পাড়তে ওঠেন তৌফিক। এ সময় হঠাৎ পা পিছলে নিচে পড়ে গিয়ে গুরুতর আহত হন তিনি। পরে তাঁকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। অবস্থা খারাপ দেখে জাপান-বাংলাদেশ ফ্রেন্ডশিপ হাসপাতালের আইসিইউতে নিয়ে যাওয়া হয়। আজ দুপুরে সেখানে তাঁর মৃত্যু হয়।

তৌফিকের বন্ধু জানান, তৌফিক একা একা আম পাড়তেন না। সঙ্গে বন্ধুরাও থাকতেন। আম পাড়া শেষে সেগুলো হলের বড় ভাইদেরও দিতেন।

এ নিয়েও ৩ মে রাতে ফেসবুকে চারটি ছবিসহ আরেকটি পোস্ট দেন তৌফিক। সেখানে লিখেন, ‘মধ্যরাতে আম পাড়ার মজাই আলাদা। আজ সাতজন বন্ধু মিলে এক মণ প্লাস আম পেড়ে হলের সব ভাইদের দিয়েছি এবং অনেকে তাদের ইয়ে মানে ইয়েদের জন্য আম সংরক্ষণ করে রেখেছে। যদি তাদের ইয়ে মানে ইয়ে এই পোস্টটি পড়ে থাকেন, তবে আপনার প্রাপ্য আম চেয়ে নিতে ভুলবেন না!!!

বি: দ্র: ঢাবিতে আমের বাম্পার ফলন!!!!! (তৌফিক)’