ঢাকা, ডিসেম্বর ১৭, ২০১৭, ৩ পৌষ ১৪২৪, স্থানীয় সময়: ১৫:৫৫:৫৯

এ পাতার অন্যান্য সংবাদ

এমপি হ্যাপি বড়ালের মেয়ে অদিতি বড়ালকে ছুরিকাঘাত। তুরাগ নদ দখল করে থাকা ৩০ প্রতিষ্ঠান উচ্ছেদের নির্দেশ ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা : প্রকৃত অপরাধীদের আড়াল করতেই নিরীহ জজ মিয়াকে দিয়ে মিথ্যা স্বীকারোক্তি দেয়ানো হয় : রাষ্ট্রপক্ষ ইকুইভ্যালেন্সি সার্টিফিকেটের আবেদন ফরম ও নিয়মাবলী বিচারকদের আচরণ বিধি প্রকাশ চতুর্থ শ্রেণির ছাত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টায় শ্রমিক লীগ নেতা গ্রেপ্তার ৬৭ শতাংশ সেবাগ্রহীতাকে ঘুষ দিতে হয় : ইফতেখারুজ্জামান ‘আপনার সময় ঘনিয়ে এসেছে’, অ্যাটর্নি জেনারেলকে হুমকি আদালতে হাজিরা দিয়ে দুই মামলায় জামিন পেলেন খালেদা জিয়া কোচিংবাজ শিক্ষকরা দুদকের জালে

ডেসটিনির এমডি-চেয়ারম্যানের জামিনাদেশ সংশোধন আবেদন আাপিলে খারিজ

আইন ও মানবাধিকার | ১৭ অগ্রহায়ন ১৪২৪ | Friday, December 1, 2017

ঢাকা : ডেসটিনি গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) রফিকুল আমিন ও ডেসটিনি-২০০০ লিমিটেডের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ হোসেনের জামিনের আদেশ সংশোধন চেয়ে করা আবেদন খারিজ করে দিয়েছে সুপ্রিমকোর্টের আপিল বিভাগ।
বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বে আপিল বিভাগ বেঞ্চ বৃহস্পতিবার এ আদেশ দেয়।
আদালতে দুদকের পক্ষে ছিলেন খুরশীদ আলম খান। তিনি সাংবাদিকদের বলেন, হাইকোর্ট জামিন দেয়ার পর আপিল বিভাগ সেই জামিন আদেশ স্থগিত করে। পরবর্তীতে আপিল বিভাগ শর্ত সাপেক্ষে তাদের জামিন দেয়। সেই শর্ত সংশোধন চেয়ে তারা আবেদন করেছিলেন। সে আবেদনও আজ খারিজ করা হয়েছে।
২০১২ সালের ৩১ জুলাই রফিকুল আমিন ও মোহাম্মদ হোসেনসহ ডেসটিনি গ্রুপের ২২ জনের বিরুদ্ধে রাজধানীর কলাবাগান থানায় দু’টি মামলা করে দুদক। ডেসটিনি মাল্টিপারপাস কো-অপারেটিভ (এমএলএম) ও ট্রি-প্ল্যানটেশন প্রকল্পের নামে গ্রাহকদের কাছ থেকে সংগৃহীত অর্থের মধ্যে ৩ হাজার ২৮৫ কোটি ২৫ লাখ ৮৮ হাজার ৫২৪ টাকা আত্মসাৎ করে পাচারের অভিযোগে মানিলন্ডারিং প্রতিরোধ আইনে মামলা দু’টি দায়ের করা হয়।
গত বছরের ২০ জুলাই শর্তসাপেক্ষে রফিকুল আমিন ও মোহাম্মদ হোসাইনকে জামিন দেয় হাইকোর্ট। পরে দুদকের আবেদনে তা স্থগিত করে দেয় আপিল বিভাগ। এ আবেদনের শুনানির এক পর্যায়ে আত্মসাৎ করা টাকা জমা দেয়ার কথা বলেন আপিল বিভাগ।
সে অনুসারে গত বছরের ১৩ নভেম্বর ডেসনিটির পক্ষ থেকে গাছ বিক্রি করে টাকা দেয়ার কথা বলা হয়। ওইদিন হলফনামা দিয়ে আদালতকে জানানো হয় যে, তাদের কাছে ৩৫ লাখ গাছ আছে। প্রতিটি গাছ আট হাজার টাকায় বিক্রি করে ২ হাজার ৮০০ কোটি টাকা দিতে পারবেন তারা।
ডেসটিনি ট্রি-প্ল্যান্টেশনের সিইও ড. শামসুল হক ভূঁইয়া তত্ত্বাবধানে সব কাজ সম্পন্ন হবে। যদি গাছ বিক্রি করে ২ হাজার ৮০০ কোটি টাকা দিতে না পারেন, তাহলে নগদ ২ হাজার ৫০০ কোটি টাকা ট্রেজারি চালানের মাধ্যমে জমা দেবেন তারা। এর অনুলিপি দুর্নীতি দমন কমিশনের চেয়ারম্যানকে পাঠাতে হবে। এরপর যারা ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তি, যাচাই করে তাদের কাছে টাকা হস্তান্তরের পর জামিনে মুক্তি পাবেন দুই কর্মকর্তা। শর্ত পূরণ না করে কয়েকমাস পরে তারা এ আদেশের সংশোধন চেয়ে আবেদন করেন।