ঢাকা, আগস্ট ১৬, ২০১৮, ১ ভাদ্র ১৪২৫, স্থানীয় সময়: ১৫:৫৯:৩০

জাবালে নূর হয়ে যাচ্ছে নিউ ভিশন!

| ২৭ শ্রাবণ ১৪২৫ | Saturday, August 11, 2018

 

বাসচাপায় দুই কলেজ শিক্ষার্থী নিহতের পর রুট পারমিট বাতিল হওয়া জাবালে নূর পরিবহনের মালিকরা বিভিন্ন কোম্পানির সঙ্গে যুক্ত হয়ে তাদের বাসগুলো রাস্তায় নামানোর চেষ্টা করছেন। এরই মধ্যেই বেশ কিছু বাসের রং ও নাম বদলে ফেলা হয়েছে।

আজ শনিবার রাজধানীর মিরপুর এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, জাবালে নূর পরিবহনের একটি বাসের রং উঠানোর কাজ চলছে। বাসটির সামনে নিউ ভিশনের স্টিকার লাগানো হয়েছে। তবে, তখনো পেছনে জাবালে নূর লিখাটা তুলে ফেলতে পারেনি। পেছনের অংশে ঘষা-মাজার কাজ করলেও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নজর এড়াতে সামনের অংশে নিউভিশনের স্টিকার লাগিয়ে দেওয়া হয়েছে। বাসটির রেজি. নম্বর ঢাকা মেট্রো ব-১১-৭৩৭৪।

এছাড়াও আরো কয়েকটি কোম্পানির ব্যানারে জাবালে নূরের বাসগুলো চালানোর প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) অতিরিক্ত কমিশনার (ট্রাফিক) মীর রেজাউল করিম এনটিভি অনলাইনকে বলেন, ‘জাবালে নূরের কোনো গাড়ি রাস্তায় পেলেই আটক করা হবে। এমন নির্দেশনা ট্রাফিক বিভাগকে দেওয়া আছে।’

ভিন্ন নামে জাবালে নূর রাস্তায় নামানোর প্রস্তুতি  চলছে এ বিষয়ে রেজাউল করিম জানান, এমন তথ্য তিনি পাননি।

এরপর তাঁকে নিউ ভিশন নামে নাম পাল্টানোর ছবি দেখানো হয়। এ সময় অতিরিক্ত কমিশনার বলেন, ‘এটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ তথ্য। আমি বিষয়টি ট্রাফিক বিভাগকে অবহিত করব।’

এদিকে ডিএমপি কমিশনার আসাদুজ্জামান মিয়া বলেছেন, ‘অধিকাংশ বাস কোম্পানি ৫০টি বাসের রুট পারমিট নিয়ে ২০০ বাস চালাচ্ছে। এমন অভিযোগ রয়েছে। এটি চলতে দেওয়া যাবে না।’

গতকাল শুক্রবার রাতে নিউ ভিশনের একটি গাড়ি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামালের গাড়িকে ধাক্কা দেওয়ায় তাদের বিরুদ্ধেও আইনি ব্যবস্থা নিয়েছে পুলিশ। এরই মধ্যে ধাক্কা দেওয়া বাস, চালক ও হেলপারকে আটক করে শেরে বাংলানগর থানায় মামলা করা হয়েছে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ডিএমপির তেজগাঁও বিভাগের ডিসি বিপ্লব কুমার সরকার।

এদিকে, রুট পারমিট বাতিল হওয়ার পরও রাস্তায় চলাচল করায় জাবালে নূর পরিবহনের আরো ছয়টি বাস আটক করেছে র‍্যাব। রাজধানীর মিরপুর ও উত্তরা এলাকা থেকে র‍্যাব ১ ও র‍্যাব ৪ এর সদস্যরা গাড়িগুলো আটক করে।

র‍্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) ও সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) মিজানুর রহমান বলেন, ‘আটকের সময় চালকরা গাড়ির কোনো কাগজপত্র দেখাতে পারেননি।’

গত ২৯ জুলাই রাজধানীর বিমানবন্দর সড়কে শহীদ রমিজ উদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট স্কুল অ্যান্ড কলেজের একদল শিক্ষার্থীকে জাবালে নূরের একটি বাস ধাক্কা দেয়। এতে নিহত হয় দুই শিক্ষার্থী। আহত হয় আরো বেশ কয়েকজন। এরপর শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে টানা নয়দিন অচল থাকে রাজধানী ঢাকার সড়কগুলো।

এরপর জাবালে নূর পরিবহনের বাসমালিক শাহাদাৎ হোসেন, তিন বাসের চালক ও দুই বাসের হেলপারকে গ্রেপ্তার করে র‍্যাব। একই সঙ্গে জাবালে নূর পরিবহনের রুট পারমিট বাতিল করে বিআরটিএ।