ঢাকা, ফেব্রুয়ারী ১৯, ২০১৯, ৭ ফাল্গুন ১৪২৫, স্থানীয় সময়: ২৩:১২:১৩

ক্ষতিপূরণ চাই, দুদকের কঠিন বিচার চাই : জাহালম

আইন ও মানবাধিকার, দেশের খবর | ২২ মাঘ ১৪২৫ | Monday, February 4, 2019

ক্ষতিপূরণ চাই, দুদকের কঠিন বিচার চাই : জাহালম

জেল থেকে ছাড়া পাওয়ার পর সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলছেন জাহালম। ছবি : সংগৃহিত

দুর্নীতি দমন কমিশনের মামলায় বিনা দোষে আটক জাহালমকে মুক্তি দেয়া হয়েছে। রবিবার রাত সাড়ে ১২টায় তার মুক্তির কাগজপত্র কাশিমপুর কারাগারে পৌছালে কারা কর্তৃপক্ষ তাকে মুক্তি দেয়। এ ব্যাপারে কাশিমপুর কারাগারের সিনিয়র জেল সুপার সুব্রত বালা ইত্তেফাককে জানান, গতকাল রাত ১২টা ৫৫ মিনিটে জাহালমকে মুক্তি দেয়া হয়।

 

জাহালমের ভাই ও পরিবারের লোকজনের সঙ্গে বাড়ি ফিরেছেন। জাহালম কারাগার থেকে বের হলে কান্নায় ভেঙে পড়েন ভাই শাহানূর মিয়া।

 

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে জাহালম বলেন, ‘এখন আমার অনেক ভালো লাগছে। আমি তিন বছর পর জেল থেকে বাইর হইছি। আমি কোনো অপরাধ না কইরা আজকে তিন বছর দুদক আমারে আটকা রাখছে মামলা দিয়া, মিথ্যা মামলা দিয়া। আমি দুদকের কঠিন বিচার চাই।

 

বিনা দোষে তিন বছর কারাগারে আটকে রাখায় ক্ষতিপূরণের দাবি জানিয়ে জাহালম বলেন, ‘আমি অনেক ক্ষতিগ্রস্ত হইছি। আমি ক্ষতিপূরণ চাই রাষ্ট্রের কাছে, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে।’

 

জাহালম বলেন, ‘জজ স্যাররে বলছিলাম যে আমি এই মামলার আসামি না। আমি আবু সালেক (প্রকৃত আসামি) না, আমি জাহালম। কিন্তু তিনি আমার কথা বিশ্বাস যায়নি (করেননি)। জজ সাহেব দেখছে যে, এই ছবি আর এই ছবি মিলছে, কয় আমি বলে সেই লোক। আর স্বাক্ষীরা তারাও বলে আমি সেই (আবু সালেক) লোক। কিন্তু আমি তো সেই সময় কোনো কিছু জানি না।’

দুদককে সঠিক তদন্তের মামলার আসামি ধরার দাবি জানিয়ে জাহালম বলেন, ‘দুদক যেভাবে মিথ্যা মামলা দিয়া মানুষরে হয়রানি করতাছে, দুদক হইলো এক নম্বর জালিয়াত। সঠিক তদন্ত না কইরা যানি (যেন) লোক ধরে না তারা। সঠিক তদন্ত নিয়া তারপর লোকদের মামলার আসামি করুক।’

 

এ সময় তার ভাই শাহানূর মিয়া বলেন, যাদের ভুলের কারণে তার ভাই জেল খেটেছে তিনি তাদের বিচার ও ক্ষতিপূরণ চান। পরে একটি মাইক্রোবাসে উঠে দুই ভাই কারা এলাকা ত্যাগ করেন।

 

গত ২০১৬ সালের ৬ জুন জাহালমকে নরসিংদী থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরে ওই বছরের ২৭ মে তাকে কাশিমপুর কারাগারে স্থানান্তর করা হয়।