ঢাকা, মে ২৪, ২০১৮, ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫, স্থানীয় সময়: ০২:৩৬:২৪

এ পাতার অন্যান্য সংবাদ

গণআন্দোলনের মুখে সুষ্ঠু নির্বাচন দিতে বাধ্য হবে সরকার:খন্দকার মোশাররফ হোসেন ‘বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতার ফাঁদে ফেলার সুযোগ থাকবে না’ এদেশের সংখ্যালঘু মানুষেরও একটা ভোট দেয়ার সমান অধিকার রয়েছে : পূজা উদযাপন পরিষদের দ্বি-বার্ষিক সম্মেলনে সেতুমন্ত্রী ‘৩৩৩’ নম্বরে ফোন করে পাওয়া যাবে ইসলামিক সেবা প্রধানমন্ত্রীর অগ্রধিকারমূলক কর্মসূচি একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্পে স্বাবলম্বী হচ্ছে গ্রামের হতদরিদ্র লাখো পরিবার কেসিসি নির্বাচন শান্তিপূর্ণভাবে অনুষ্ঠিত হয়েছে : ইডব্লিউজি জনগণের সেবা প্রাপ্তী নিশ্চিত করুন : পুলিশের প্রতি প্রধানমন্ত্রী বার কাউন্সিলে বঙ্গবন্ধু আইনজীবী পরিষদ সমর্থিতদের নিরঙ্কুশ জয় প্রতিবন্ধি ব্যক্তিদের ওপর ডাটাবেজ তৈরি করতে সায়মা ওয়াজেদের আহবান

কেসিসি নির্বাচন শান্তিপূর্ণভাবে অনুষ্ঠিত হয়েছে : ইডব্লিউজি

দেশের খবর | ২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫ | Wednesday, May 16, 2018

ঢাকা : বিচ্ছিন্ন কিছু ঘটনা ছাড়া খুলনা সিটি কর্পোরেশন (কেসিসি) নির্বাচন শান্তিপূর্ণভাবে অনুষ্ঠিত হয়েছে। সেখানে মোটাদাগে কোনো সহিংসতা বা অনিয়মের ঘটনা ঘটেনি।
নির্বাচনী প্রক্রিয়ায় অধিকতর স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিতের লক্ষ্যে ২৮টি সিভিল সোসাইটি প্রতিষ্ঠান বা সংস্থার সমন্বয়ে গঠিত ইলেকশন ওয়ার্কিং গ্রুপ (ইডব্লিউজি) কেসিসি নির্বাচন পর্যবেক্ষণ সংক্রান্ত প্রাথমিক বিবৃতিতে এ কথা বলেছে।
আজ জাতীয় প্রেসক্লাবে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে মূল প্রবন্ধ পাঠ করেন ইডব্লিউজি’র পরিচালক ড. মো. আব্দুল আলিম। এ সময় সংস্থার সদস্য অধ্যাপক ড. নাজমুল আহসান কলিমুল্লাহসহ সংশ্লিষ্টরা উপস্থিত ছিলেন।
নাজমুল আহসান কলিমুল্লাহ বলেন, কিছু অনিয়ম ও বিচ্ছিন্ন ঘটনা ঘটলেও খুলনা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন মোটাদাগে শান্তিপূর্ণ হয়েছে। এটি ছিল স্থানীয় সরকার নির্বাচন। চলতি বছর নির্বাচনের বছর হিসেবে এই নির্বাচনের গুরুত্ব অনেক ছিল।
মূল প্রবন্ধে ড. মো. আব্দুল আলীম জানান, খুলনার নির্বাচনে ভোট প্রদানের হার ৬৪ দশমিক ৮ শতাংশ। সকাল ১০টায় এ হার ছিল ১৯ দশমিক ৩ শতাংশ, দুপুর ১টায় ছিল ৪৭ শতাংশ, বিকেল ৩টায় ভোট প্রদানের হার ছিল ৫৮ দশমিক ৭ শতাংশ। প্রতিবন্ধী ভোটারদের জন্য ৭৮ দশমিক ৬ শতাংশ কেন্দ্র উপযুক্ত ছিল। ৪টি ভোট কেন্দ্রের ও ১২টি কেন্দ্রের বাইরে সহিংসতার ঘটনা ঘটেছে। ভোট দেয়ায় বাধার ঘটনা ছিল ১৮টি, ভোট কেন্দ্রের ৪শ’ গজের মধ্যে নির্বাচনী প্রচারণার ঘটনা ১০টি।
ইডব্লিউজি ২৮৯টি ভোট কেন্দ্রের মধ্যে ১৪৫টি অর্থাৎ ৫০ দশমিক ০২ শতাংশ ভোটকেন্দ্র পর্যবেক্ষণ করেছে।
তারা জানান, ভোট গ্রহণ করার সময় ইডব্লিউজির পর্যবেক্ষকরা ৯৯ দশমিক ৩ শতাংশ ভোট কেন্দ্রে আওয়ামী লীগ মেয়র প্রার্থীর পোলিং এজেন্ট এবং ৮৮ দশমিক ৮ শতাংশ ভোট কেন্দ্রে বিএনপি মেয়র প্রার্থীর এজেন্টদের দেখতে পেয়েছেন। ভোটকেন্দ্রে পোলিং এজেন্ট ও পর্যবেক্ষকদের সামনে ব্যালট বাক্স খোলা হয়েছিল।
ড. আব্দুল আলীম জানান, ভোটগ্রহণের সময় ভোট কেন্দ্রগুলোতে ভোটারের লম্বা লাইন দেখা গেছে। এরমধ্যে ৩৭ শতাংশ লাইনে ১ থেকে ২০ জন, ২৭ শতাংশ লাইনে ২১ থেকে ৪০ জন, ৩৪ শতাংশ কেন্দ্রে ৪০ জনের বেশি ভোটার ভোট প্রদানের জন্য লম্বা লাইনে দাঁড়ানো ছিলেন। ৯৭ শতাংশ কেন্দ্রে প্রিজাইডিং অফিসার, পোলিং এজেন্ট ও পর্যবেক্ষকদের প্রবেশ নিশ্চিত করে ভোট গণনা শুরু করা হয়েছে।