ঢাকা, ডিসেম্বর ১৬, ২০১৮, ২ পৌষ ১৪২৫, স্থানীয় সময়: ১৫:১০:১১

এ পাতার অন্যান্য সংবাদ

বাংলাদশ মাইনরিটি ওয়াচের উদ্যোগে আন্তর্জাতিক মানবাধিকার দিবস-২০১৮ পালিত। মনোনয়ন বাতিলের বিরুদ্ধে খালেদা জিয়ার আপিল ইসিতে খারিজ বিএনপি নির্বাচন বানচালের চেষ্টা করছে : আওয়ামী লীগ স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব রক্ষায় সজাগ থাকতে সেনা কর্মকর্তাদের প্রতি রাষ্ট্রপতির আহ্বান মনোনয়ন না পাওয়া দলের প্রার্থীদের মহাজোট প্রার্থীর পক্ষে প্রার্থিতা প্রত্যাহারের অনুরোধ শেখ হাসিনার নির্বাচন কমিশন নিরপেক্ষতা অবলম্বন করছেন : ইনু রংপুর ৩ এ এরশাদের বিরুদ্ধে তথ্য গোপনের অভিযোগ : জাপাকে ছাড় দিচ্ছেন না ৯ প্রার্থী ভিকারুননিসা স্কুলের নতুন অধ্যক্ষ হাসিনা বেগম বাদ পড়লেন মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া ও ড. শামসুল মিথ্যা তথ্যে রাজস্ব ফাঁকি সম্পদশালীদের ব্যাংকে কোটিপতি ৭০০০০ আয়করে ১২০০০

ঐক্যফ্রন্ট কোনো অবস্থাতে নির্বাচন বয়কট করবে না : ড. কামাল

দেশের খবর, প্রধান সংবাদ | ৩ অগ্রহায়ন ১৪২৫ | Saturday, November 17, 2018

 

আজ শনিবার দুপুরে সুপ্রিম কোর্ট বার মিলনায়তনে জাতীয় আইনজীবী ঐক্যফ্রন্টের সমাবেশে বক্তব্য দেন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের আহ্বায়ক ও গণফোরামের সভাপতি ড. কামাল হোসেন।

জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট কোনো অবস্থাতে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন বয়কট করবে না বলে জানিয়েছেন জোটের আহ্বায়ক ও গণফোরামের সভাপতি ড. কামাল হোসেন।

আজ শনিবার দুপুরে সুপ্রিম কোর্ট বার মিলনায়তনে জাতীয় আইনজীবী ঐক্যফ্রন্টের সমাবেশে এ কথা বলেন ড. কামাল হোসেন। এ সময় তিনি আবারও বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবি করেন।

অনুষ্ঠানে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, ক্ষমতা নয়, বিচার বিভাগের স্বাধীনতা প্রতিষ্ঠা ও গণতন্ত্র রক্ষার জন্যই জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট আন্দোলন করছে। ওইখানেই নিহিত আছে গণতন্ত্রের স্বাধীনতা। বিচার বিভাগের যদি কোনো স্বাধীনতা না থাকে তাহলে কোথাও কোনো স্বাধীনতা থাকবে না।

ঐক্যফ্রন্টের এ মুখপাত্র বলেন, সরকার ইচ্ছেমতো বিচার ব্যবস্থা নিয়ন্ত্রণ করছে। আমি বিচার ব্যবস্থার স্বাধীনতার জন্য আপনাদের আন্দোলন করার জন্য আহ্বান জানাব। ওইখানেই নিহিত আছে গণতন্ত্রের স্বাধীনতা। বিচার বিভাগের যদি কোনো স্বাধীনতা না থাকে তাহলে কোথাও কোনো স্বাধীনতা থাকবে না।

মির্জা ফখরুল আরো বলেন, এই নির্বাচনে যদি গণতন্ত্রকামী মানুষ জয়ী হতে না পারে চিরতরে বিচার ব্যবস্থা চলে যাবে একটা দলের হাতে। গণতন্ত্র চলে যাবে একটা দলের হাতে সেই কথাটি আমাদের সব সময় মনে রাখতে হবে। সাবেক প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা, এই মানুষটি সত্য কথা বলেছেন এবং তিনি রায়ও দিয়েছেন সত্যভাবে। সেজন্য তাঁকে এই সরকার দেশ থেকে জবরদস্তি বের করে দিয়েছে। তাঁকে দেশত্যাগ করতে বলেছে।

আইনজীবীদের উদ্দেশে বিএনপির মহাসচিব বলেন, ‘এত দুঃখ পেয়েছি আজকে, যে একবারের জন্য তো আপনারা কেউ নামটা (এস কে সিনহা) উচ্চারণ করলেন না। আমি মনে করি, আমাদের সবার তাঁর প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানানো উচিত এবং তিনি যে সত্য কথাগুলো উচ্চারণ করে গেছেন সে কথাগুলো আমাদের বারবার করে উচ্চারণ করা উচিত।’

এর আগে সমাবেশে আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে শেষ পর্যন্ত ভোটের (নির্বাচনে) মাঠে থাকার জন্য কেন্দ্রীয় নেতাদের কাছে নির্দেশনা চেয়েছেন বিএনপিপন্থী আইনজীবীরা। একই সঙ্গে আসন্ন নির্বাচনে বিভিন্ন আসনে প্রার্থী হিসেবে আইনজীবীদের মনোনয়ন দেওয়ার জন্য বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতাদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন তাঁরা।

আইনজীবীদের মহাসমাবেশে বিভিন্ন জেলা থেকে আসা বিএনপিপন্থী আইনজীবীরা এসব দাবি জানান। দিনাজপুর জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি আব্দুল হালিমের বক্তব্যের মধ্য দিয়ে জেলা নেতাদের বক্তৃতা শুরু হয়।

বগুড়া আইনজীবী সমিতির সভাপতি মোখলেসুর রহমান বলেন, আজ এখানে কেন্দ্রীয় নেতারা আছেন। আমরা আপনাদের কাছ থেকে নির্দেশনা নিয়ে যেতে চাই শেষ পর্যন্ত ভোটের মাঠে থাকার। তিনি বলেন, ‘অনেক ষড়যন্ত্র-নির্যাতন হবে, তবু নির্বাচনের মাঠ ছেড়ে দেব না। আমাদের শেষ পর্যন্ত প্রতিটি কেন্দ্র পাহারা দিতে হবে, যাতে আমাদের বিজয় কেউ কেড়ে নিতে না পারে।’

সমাবেশে অংশ নেওয়া চট্টগ্রাম আইনজীবী সমিতির (বারের) সভাপতি নিজাম উদ্দিন চৌধুরীও একই কথা বলেন। পাশাপাশি আগামী সংসদ নির্বাচনের জন্য তিনি মনোনয়ন প্রত্যাশী বলেও জানান।

আইনমন্ত্রী আনিসুল হকের নির্বাচনী এলাকা থেকে সমাবেশে অংশ নেওয়া ব্রাহ্মণবাড়ীয়া জেলা আইনজীবী সমিতির (বারের) সভাপতি শফিকুল ইসলাম বলেন, আমাকে মনোনয়ন দিলে বর্তমান আইনমন্ত্রীকে ধরাশায়ী করব ইনশা আল্লাহ।

জাতীয় আইনজীবী ঐক্যফ্রন্টের আয়োজনে সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত মহাসমাবেশে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির (বার) সভাপতি ও আইনজীবী ঐক্যফ্রন্টের আহ্বায়ক জয়নুল আবেদীন।

বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকনের পরিচালনায় সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন, ব্যারিস্টার মোহাম্মদ শাহজাহান ওমর, মীর নাসির, গিয়াস উদ্দিন, ব্যারিস্টার বদরোদ্দোজা বাদল, অ্যাডভোকেট নিতাই রায় চৌধুরী, তৈমূর আলম খন্দকার, সানাউল্লাহ মিয়া, সৈয়দ মুয়াজ্জেম হোসেন আলাল, কামরুল ইসলাম সজল, নাসরিন আক্তার প্রমুখ। এ ছাড়া সমাবেশে গণফোরামের কার্যকরী সভাপতি অ্যাডভোকেট সুব্রত চৌধুরী, জগলুল হায়দার আফ্রিকসহ দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে আসা বিএনপিপন্থী আইনজীবীরাও বক্তব্য দেন।